আ.লীগে লিটনের আধিপত্য বিএনপিতে বিভক্তি

  মাতুব্বর শফিক স্বপন, মাদারীপুর

২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০০:৪৫ | অনলাইন সংস্করণ

দিন যতই ঘনিয়ে আসছে, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে
মাদারীপুর-১ (শিবচর) আসনের সম্ভাব্য প্রার্থীরা প্রচারণায় ততই ব্যস্ত হয়ে উঠেছেন। সর্বত্রই আলোচনা নির্বাচনে বিভিন্ন দলের সম্ভাব্য প্রার্থীদের নিয়ে। বিশেষ করে তাদের যোগ্যতা, দক্ষতা ও এলাকার উন্নয়ন কর্মকা- আলোচনায় স্থান পাচ্ছে বেশি। সম্ভাব্য প্রার্থীরা ভোটারদের কাছে দোয়া চাওয়া ও শুভেচ্ছা জানানোর পাশাপাশি নতুন নতুন প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন।  
এ আসনে এখন পর্যন্ত ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য একক প্রার্থী নুর ই আলম চৌধুরী লিটন। তিনি পাঁচবার এ আসন থেকে সাংসদ নির্বাচিত হয়েছেন। এলাকায় একচ্ছত্র আধিপত্য থাকায় আওয়ামী লীগের আর কোনো নেতার নাম সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে আলোচনায়ই আসেনি।
অন্যদিকে বিএনপিতে আছে মনোনয়ন প্রশ্নে চরম গ্রুপিং। একাধিক ভাগে বিভক্ত হয়ে আছেন উপজেলা বিএনপির নেতাকর্মীরা। এর প্রভাব পড়েছে অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলোয়। জেলা কমিটি অনুমোদিত শিবচর উপজেলা বিএনপির বর্তমান ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ইয়াজ্জেম হোসেন রোমান। তিনি একটি গ্রুপের নেতৃত্বে আছেন। অপর গ্রুপটির নেতৃত্বে আছেন শিবচর উপজেলা বিএনপির একাংশের সভাপতি কামাল জামান নুরুদ্দিন মোল্লা। এই দুই নেতাই আগামী নির্বাচনে দল থেকে মনোনয়নপ্রত্যাশী। তাদের বাইরে মাঠে নির্বাচনী তৎপরতা চালাচ্ছেন নিউ নেশন পত্রিকার সাবেক সম্পাদক ও দৈনিক ইত্তেফাকের প্রকাশক মরহুম মোতাহার হোসেন সিদ্দিকীর ছেলে বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের সাবেক কোচ ও ঢাকা সিটি করপোরেশনের সাবেক কাউন্সিলর বিএনপি নেতা সাজ্জাদ হোসাইন সিদ্দিকী লাভলু ও কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সহসভাপতি আবদুল হান্নান মিয়া। কামাল জামান নুরুদ্দিন মোল্লা এর আগেও দলীয় প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলেন। এবারও প্রচারণা চালাচ্ছেন পুরোদমে।
আওয়ামী লীগ থেকে লিটন চৌধুরীর মনোনয়ন একপ্রকার নিশ্চিতই বলা যায়। অন্যদিকে বিএনপির গ্রুপিং থাকায় সাংগঠনিকভাবে তেমন সুবিধা করতে পারছেন না কেউই। তবে দলের নেতাকর্মীরা বলছেনÑ কেন্দ্র থেকে যাকেই মনোনয়ন দেওয়া হোক, তার পক্ষে একজোট হয়ে কাজ করবেন তারা।

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে