মর্যাদার লড়াইয়ে জয় ভারতের

  স্পোর্টস ডেস্ক

১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২৩:৫৩ | আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২৩:৫৯ | অনলাইন সংস্করণ

ফুটবলে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা আর ক্রিকেটে ভারত-পাকিস্তান। এদের লড়াই মানেই বাড়তি শিহরণ। শেষ পর্যন্ত জয় নিয়ে মাঠ ছাড়তে পারে একটি দলই, কিন্তু উভয় দলেরই ভক্তরা প্রতিটি সেকেন্ড উপভোগ করেন চুটিয়ে। এরা  মুখোমুখি হলেই মাঠের লড়াইকে ছাপিয়ে যায় মাঠের বাইরের লড়াই।

এশিয়া কাপ ক্রিকেটে গ্রুপপর্বের শেষ ম্যাচে পাকিস্তানকে উড়িয়ে দিয়েছে ভারত। কাগজে কলমে ম্যাচটির কোন গুরুত্ব না থাকলেও এটা যে দল দুটির মর্যাদার লড়াই!

শেষ পর্যন্ত দুবাইয়ে মর্যাদার লড়াইয়ে জয় হয়েছে ভারতেরই। ব্যাটিং-বোলিংয়ে ভারতীয়দের কাছে রীতিমত নাস্তানাবুদ হয়েছেন পাকিস্তানিরা। টসে জিতে ব্যাট করতে নেমে ৪১ বল বাকি থাকতেই ১৬২ রানে অলআউট হয়ে যায় পাকিস্তান। জবাবে খেলতে নেমে ভারত ১২৬ বল হাতে রেখে আট উইকেটে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে।

এশিয়া কাপে পাকিস্তানের বিপক্ষে গ্রুপপর্বের এ ম্যাচটি নিয়ে কম জলঘোলা হয়নি। নিজদের প্রথম ম্যাচে হংকংয়ের বিরুদ্ধে খেলার পরদিনই ভারতকে মাঠে নামতে হবে পাকিস্তানের বিপক্ষে। এমন গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচের আগে একদিনেরও বিশ্রাম নেই এই নিয়ে এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিলকে (এসিসি)  একহাত নিয়েছিলেন ভারতের সাবেক তারকা হতে বর্তমানরা। কিন্তু পাকিস্তানিদের বিপক্ষে রোহিত শর্মারা ছিলেন ভীষণ ফুরুফুরে। ক্লান্তির ছাপ ছিল না কারও শারীরিক দর্শনে। প্রিয় প্রতিদ্বন্দ্বীকে পেয়ে হয়ত আরও উজ্জীবিত হয়েছেন ভারতীয় খেলোয়াড়রা।

ওপেনিংয়ে নেমে রোহিত শর্মা-শিখর ধাওয়ান ধীরে চলা নীতি শুরু করেন। টুকটাক সিঙ্গেলস বের করছিলেন। কিন্তু সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে রোহিত শর্মার ব্যাটে ফুটতে থাকে চার-ছয়ের ফুলঝুরি। ৬ চার ও ৩ ছয়ের মারে ৫২ রান করে সাজঘরে ফিরে যান তিনি। ৮৬ রানে ভাঙ্গে রোহিত-ধাওয়ানের ওপেনিং জুটি। রোহিত ফিরে যাওয়ার পর ধাওয়ান বেশিক্ষণ ক্রিজে থাকতে পারেননি। অল্পের জন্য অর্ধশতক থেকে বঞ্চিত হয়েছেন আগের ম্যাচে শতক হাঁকানো এ বাঁহাতি ওপেনার। আউট হওয়ার আগে তার ব্যাট থেকে আসে ৫২ বলে ৪৬ রান।

রোহিত-ধাওয়ান ফিরে গেলে ক্রিজে আসেন আম্বাতি রাইডু ও দীনেশ কার্তিক। এ দুজনকে পরাস্ত করতে পারেননি মোহাম্মদ আমির-উসমান খানরা। শেষ পর্যন্ত অপরাজিত থেকে দলকে জিতিয়ে তবেই মাঠ ছাড়েন তারা। রাইডু-কার্তিক দুজনই অপরাজিত ছিলেন ৩১ রানে। পাকিস্তানের হয়ে একটি করে উইকেট নেন ফাহিম-শাদাব। উইকেটের মুখ দেখেননি মোহাম্মদ আমির।

এর আগে ভারতীয় বোলারদের সামনে পাকিস্তানের ব্যাটসম্যানরা দাঁড়াতেই পারেনি। বুমরাহ-ভুবেনশ্বর কুমারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে ৪১ বল বাকি থাকতেই পাকিস্তান ১৬২ রানে অলআউট হয়। ব্যাট করতে নেমে ওপেনিংয়ে ধাক্কা খাওয়ার পর বাবর-মালিকের জুটিতে ঘুরে দাঁড়িয়েছিল পাকিস্তান। কিন্তু দুজন ফিরে গেলে ধ্স নামে পাকিস্তানের ব্যাটিং লাইনআপে। শোয়েব মালিক-বাবর আজমের জুটিতে ৮২ রান আসে। মালিক ৩৫ ও বাবর ৪৭ রান করে ফিরে যান সাজঘরে। 

এ দুজন ছাড়া পাকিস্তানের আর কোনো ব্যাটসম্যান দাঁড়াতে পারেনি। শেষ দিকে ফাহিম আশরাফের ২১ ও মোহাম্মদ আমিরের ১৮ আরও কম রানে অলআউট হওয়া থেকে রক্ষা করে পাকিস্তানকে। ভারতের হয়ে ভুবেনশ্বর কুমার-কুলদীপ যাদব তিন উইকেট করে নিয়েছেন। এ ছাড়া যশপ্রিত বুমরাহ দুই উইকেট ও কুলদীপ যাদব নিয়েছেন একটি উইকেট।

গ্রুপ ‘এ’ থেকে হংকংকে হারিয়ে দুই দল আগেই নিশ্চিত করেছিল সুপার ফোর। । টানা দুই ম্যাচে ভারত ও পাকিস্তানের সঙ্গে হেরে এশিয়া কাপের গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নেয় হংকং। আগামী ২১ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হবে সুপার ফোরের লড়াই। সুপার ফোরের বাকি দুই দল বাংলাদেশ ও আফগানিস্তান। 

  • সর্বাধিক পঠিত
  • সর্বশেষ

ই-পেপার

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে